Surprising Benefits of Exercise

Physical Exercise Is Going To Boost Your Cardiovascular Health.

Keeping Smile!

When someone is rude, keep a smile on your face. When you stay on the right road and keep your joy, you take away their power.

Yoga postures to relieve menstrual cramps

Many women suffer abdominal cramps during their menstrual cycles. At times, the cramps are combined with shooting or burning sensations in the lower abdomen. Nausea is also common during periods in females.

Health Benefits of Running

The health benefits of running include weight loss, a youthful appearance, prevention of muscle and bone loss, growth hormone enhancement, the prevention of stroke, diabetes, and hypertension. It also lowers high cholesterol level, improves blood clotting, boosts the immune system, reduces stress, and enhances mood.

Friday, September 14, 2018

ছাদের উপর মোবাইল টাওয়ার স্থাপনা মারাত্মক ক্ষতিকর!

বর্ণ, গন্ধ, শব্দহীন এবং অদৃশ্য মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশন বা তেজস্ক্রিয় নির্গত বিকিরণ মানব দেহ ও জীব জগতের জন্য ভয়াবহ ক্ষতিকর।


বিশেষজ্ঞদের মতে, শিশুদের থেকে কমপক্ষে ৫ ফুট দূরে মোবাইল রাখতে হবে। রাতে ঘুমানোর সময় মোবাইল কমপক্ষে ৭ ফুট দূরে রাখতে হবে।

আবাসিক এলাকা থেকে দূরে লোকালয়ের বাইরে কমপক্ষে ৪০ তলা ভবন সমান উঁচুতে মোবাইলের টাওয়ার স্থাপন করতে হবে।

বাস্তবে আমরা কী দেখছি?

আমার আপনার বাচ্চাদের স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাদের উপর কিংবা বাসার ছাদে মোবাইল টাওয়ার স্থাপন করা হচ্ছে। বিশ্বের অধিকাংশ দেশে আবাসিক এলাকা, স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে অনেক দূরে এবং অনেক উঁচুতে মোবাইল টাওয়ার স্থাপন করা হয়। অথচ আমাদের দেশে মোবাইল ফোনের ৯০ শতাংশ টাওয়ার লোকালয়, বাড়ি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাদে স্থাপন করা হয়েছে।

এর প্রতিক্রিয়া হিসাবে আমরা অলংকৃত হচ্ছি আমাদের শিশুরা ২০ বছর পরে বিকিরণের প্রভাবে লিউকেমিয়া, ব্রেন ক্যান্সার, স্মৃতিশক্তি হারানো সহ মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনায়, একটানা দীর্ঘক্ষণ মোবাইল টাওয়ারের রেডিয়েশন গ্রহণ করলে স্কিন ক্যান্সার সহ ভয়াবহ রোগের আশংকা থাকে।

তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট বিনয়ের সাথে আবেদন রাখছি এসব ভয়ানক স্থাপনা যেন নিরাপদ দূরুত্বে স্থাপনকরে আমাদেরকে এবং আমদের দেশের উজ্জল ভবিষ্যত প্রজন্মকে এসব ক্ষতি থেকে রক্ষা করে।

[আপনাদের সুখী জীবন আমাদের কাম্য। ধন্যবাদ।]

Tuesday, August 21, 2018

পবিত্র ঈদ-উল-আযহা ও আমাদের সকলের করণীয়…

:) ঈদ-উল-আযহার দিন ১৩টা সুন্নত কাজ রয়েছেঃ-

১* ভোরে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠা ।
২* মেসওয়াক করা ।
৩* গোছল করা ।
৪* যথা-সাধ্য উত্তম পোষাক পরা।
৫* শরী’আত সম্মতভাবে সাজ-সজ্জা করা ।
৬* সুগন্ধি বা খুশবু লাগানো ।
৭* ঈদ গাহে যাবার আগে কিছু না খাওয়া।
৮* আগে আগে ঈদগাহে যাওয়া।
৯* ঈদগাহেই ঈদের নামায পড়া।
১০* পায়ে হেটে ঈদগাহে যাওয়া।
১১* যাবার সময় তাকবীর জোরে জোরে বলতে বলতে যাওয়া ।
“ আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার লা-ইলাহা ইল্লালাহু ওয়াল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার অলিল্লাহিল হ্বামদ”
১২* এক রাস্তা দিয়ে ঈদগাহে যাওয়া, অন্য রাস্তা দিয়ে প্রত্যাবর্তন করা।
১৩* ঈদুল ফিতরের তুলনায় আযহার নামায সকাল সকাল পড়া।

** যেখানে ঈদের নামায আদায় হবে সেখানে আগে পরে নফল নামায পরা ঠিক না।


:) কোরবানীর পশু জবেহ করা প্রসংগেঃ

• নিজ পশু নিজেই জবেহ করা উত্তম। না পারলে জবেহের সময় সামনে থাকা।
• পশুকে কিবলামুখী করে শুইয়ে জবেহ করা, জবাই কারীও কিবলাহ মুখী হওয়া।
• ধারালো ছুরি দ্বারা জবাই করা।
• জবাই করার পর পশুটি সম্পুর্ণ নিস্তেজ হওয়ার পর বাকী কাজ শুরু করা, আগে না।
• জবাই করার পুর্বে পানি খাওয়ানো বেশী পরিমাণে, প্রাণীকে ক্ষুধার্থ রাখা জুলুম।
• ঈদের নামাযের পুর্বে কোরবানী না করা।
• গোশত দিয়ে কোন পারিশ্রমিক দেয়া যায়েয নেই।
• গোশত তিন ভাগ করে ১. নিজে ২. আত্বীয়-স্বজন ৩. গরীব-মিসকীন দের দেয়া উত্তম।


:) পরিবেশগত সতর্কতাঃ
• আমাদের পরিবেশ ও চার-পাশ আমাদের পরিষ্কার রাখাই দায়িত্ব।
• অন্যের চলাচলে কষ্ট যাতে না হয় খেয়াল রাখা।
• জবেহ করার আগেই মাথার কাছে গর্ত করে নেওয়া, যাতে রক্ত ওখানে গরিয়ে যায়।
• সকল বজ্র ঐ গর্তে ফেলতে হবে, যাতে দুর্ঘন্ধ না ছড়ায়। আমার পশুর কোরবানীর বজ্রে যাতে অন্য কারো কষ্ট না হয়।
• ছুরি-চাপাতি ব্যবহারে সতর্ক হোন। বাচ্চাদের নাগালের বাইরে রাখুন।
• চামড়া কাটতে দক্ষ ব্যক্তির সাহায্য নিন, অন্যথায় চামড়ার গুনগত মান নষ্ট হয়ে যেতে পারে।
• ছুরি-চাকু জীবানু মুক্ত করে নিন।
• গোশত কাটতে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করুন।

Monday, October 16, 2017

অন্তঃসত্বা অবস্থায় শাররীক মিলন উচিৎ-অনুচিৎ কতটা বিপদজনক?

সবছে বেশি সংখ্যক গর্ভবতী নারীর মনে প্রশ্ন থাকে “অন্তঃসত্বা অবস্থায় কি শাররীক মিলন করা যায়?” উত্তর প্রায় সবসময়/বেশিরভাগ নারীর জন্য “হ্যাঁ”। যদি আপনার গর্ভকালীন সময় স্বাভাবিক ভাবে চলমান থাকে তাহলে আপনি সন্তান গর্ভে থাকা অবস্থায়ও শাররীক মিলন করতে পারেন। এবং আপনার স্বামী যতদিন পর্যন্ত মানসিক বাঁধায় না থাকেন ততদিন বিশেষ পদ্ধতি অবলম্বন করে শাররীক মিলন করতে পারেন। যাইহোক, অনেকগুলো কারন আছে যার ফলে আপনি গর্ভকালীন সময়ের নির্দিষ্ট কিছু সময়ব্যপ্তিতে শাররীক মিলন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।


কি কি কারনে গর্ভকালীন সময় যৌনমিলন থেকে বিরত থাকতে হবে?

কোন কারনে যৌনাঙ্গ থেকে রক্তক্ষরন হলেঃ গর্ভকালীন সময়ে অল্প কিংবা বেশি রক্তক্ষরন পরিলক্ষিত হলে শাররীক মিলন থেকে বিরত থাকতে হবে।
প্রাক প্রসব বেদনাঃ বীর্যের সংশ্চর্ষে প্রোস্টাগ্লেনডিনস্ সংকুচিত হবার সম্ভাবনা থাকে যা প্রাক-প্রসব-বেদনাকে ঝামেলাপূর্ণ করে তুলতে পারে।
আপনার কিংবা আপনার স্বামীর কোন প্রকার যৌন-সংক্রামন ব্যাধি থাকলে গর্ভকালীন শাররীক মিলন থেকে বিরত থাকতে হবে।
জরায়ুর গলদেশে সমস্যা থাকলেঃ যদি আপনার জরায়ুর মুখ অকালে খুলতে শুরু করে তাহলে শাররীক মিলন করলে রোগ সংক্রমনের সমুহ সম্ভাবনা থাকে।
গর্ভের ফুল/অমরা সমস্যায় থাকলেঃ যদি গর্ভের ফুল/অমরা জরায়ুমুখ আংশিক কিংবা সম্পুর্নরূপে ঢেকে ফেলে তাহলে শাররীক মিলনের ফলে রক্তপাত এবং প্রাক প্রসব বেদনা শুরু হয়ে যেতে পারে।
যদি আপনার ডাক্তার আপানাকে গর্ভকালীন শাররীক মিলন থেকে বিরত থাকতে বলে তাহলে খুজে বের করুন ডাক্তার কি বলতে চেয়েছে? ডাক্তার কি শাররীক মিলন থেকে বিরত থাকতে বলেছে নাকি যৌন উত্তেজনা/তৃপ্তি থেকে বিরত থাকতে বলেছে? আর যদি ডাক্তার বারন করে তাহলে অবশ্যই জেনে নিবেন – কত সময়ের জন্য বারন করেছেন? উদাহরন স্বরূপঃ অনেক নারীর গর্ভধারনের প্রাথমিক ধাপে (প্রথম তিনমাস সময়ে) যদি অল্প পরিমান রক্তক্ষরন হয় তাহলে ডাক্তার বলেন শেষ বার রক্তক্ষরনের পর কমপক্ষে এক সপ্তাহ সময়কাল মিলন/অন্যকোন ভাবে যৌন তৃপ্তি থেকে বিরত থাকেন।

গর্ভবতী অবস্থায় নারীর জন্য আরামদায়ক যৌন আসন ভঙ্গি সমুহঃ

গর্ভকালীন সময় অন্য সময় কালের মত আসন ভঙ্গিতে শাররীক মিলন করা যায়না। এটি মা এবং সন্তান উভয়ের জন্য ক্ষতির কারন হতে পারে। তাই এই সময়কালে যৌন আসন সম্পর্কে সাবধানতা অবলম্বন করা জরুরী।

নারী উপরেঃ এ আসনে নারীর নিয়ন্ত্রন থাকে কত গভীরতায় লিঙ্গ প্রতিস্থাপন করা হবে। এ পদ্ধতিতে বেশিরভাগ কার্যক্রম নারী নিজের ইচ্ছে/সুবিধা মত করতে পারেন। এই ভঙ্গিতে গর্ভের পুরো সময়কাল এমনকি শেষ সময়েও নারী অনেক কম ঝুকিতে থাকেন।

স্পুনিং / একপাশে কাত হয়ে শুয়ে মিলনঃ এ আসনে নারী হাটেু ভেঙ্গে পাশে কাত হয়ে শুবেন এবং স্বামী স্ত্রীর পিছেনে থেকে শাররীক মিলন করবেন। স্পুনিং ভাল ভাবে কাজ করে যদি পুরুষ নারীর ঊরূর মাঝে দিয়ে লিঙ্গ সঞ্চালন করেন। এ পদ্ধতিতে তলপেটে কোন চাপ পড়েনা এবং আস্তে আস্তে মিলন করার সুবিদা থাকে যা গর্ভবতীর জন্য জরুরী।

হাটু এবং হাতে ভরঃ এই ভঙ্গিটি দেখতে হামাগুড়ি দিয়ে হাটার সময় শরীরের যে রকম আকার হয় সেরকম। এই ভঙ্গিটিও গর্ভবতী নারীর জন্য ভাল – এতে পেটে কোন প্রকার চাপ পড়েনা।

অনেক বিবাহিত যুগল এই ভেবে উদ্বিগ্ন থাকেন যে – গর্ভবতী অবস্থায় শাররীক মিলন করলে গর্ভের সন্তান নষ্ট হয়ে যাবার সম্ভাবনা থাকে, প্রধানতঃ গর্ভধারনের প্রথম তিন মাস সময়কালে। সাধারনত প্রাথমিক পর্যায়ে ভ্রুন নষ্ট হওয়া ক্রোমোজোম অস্বাভাবিকতা অথবা নিষিক্ত ডিম্বানু ভ্রুনে রূপান্তরিত হবার সময়কালে অন্যান্য সমস্যার সাথে সম্পর্কিত – শাররীক মিলনের ফলে ভ্রুন নষ্ট হবার ধারনাটি ভুল।

[ আপনাদের সুখী জীবনই আমাদের কাম্য ]

Tuesday, April 18, 2017

বুকের দুধ কম হওয়ার কারন জেনে নিন !

বুকের দুধ খাওয়াতে বললেই মা-দের একটাই অভিযোগ, বুকে দুধ নাই, দুধ পায় না। আসুন আজ জেনে নেই কি কি কারনে বুকে দুধ কমে যেতে পারে কিংবা তৈরি না হতে পারে।



১। মা যদি অপুষ্টিতে ভোগে। আমাদের দেশে গর্ভবতী মায়েদের খাবার নিয়ে নানান রকম কুসংস্কার আছে। গর্ভাবস্থায় ও দুগ্ধদানকালে মাকে পুষ্টিকর খাবার, একটু বেশি খাবার দিতে হবে।

২। বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়াতে মায়ের অনিচ্ছা। বাচ্চা বুকের দুধ টানলে সেই উত্তেজনা মায়ের শরীরে দুধ তৈরির প্রক্রিয়া চালু করে দেয়। বুকের দুধ তৈরির ব্যাপারে মাকে অবশ্যই আত্মবিশ্বাসী হতে হবে।

৩। সঠিক পদ্বতি এবং অবস্থানে বাচ্চাকে না খাওয়ালে। নির্দিষ্ট পদ্বতি এবং অবস্থানে বাচ্চাখাওয়ার সময় আরাম ও সচ্ছন্দবোধ করে।উল্টাপাল্টা হলে বাচ্চা খেতে পারে না এবং স্তনেব্যাথা, স্তন ফেটে যাওয়া ইত্যাদি সমস্যা হয়।

৪। উদ্বেগ বা পারিবারিক অশান্তি। দুশ্চিন্তা,ভয়ভীতি এবং কুসংস্কার। মায়ের ঘুম ঠিক মত নাহওয়া।

৫। ফিডারে করে খাওয়ালে কিংবা চুষনি চুষতে দিলে।নিপল কফিউসন হবে।

৬। কৌটার দুধ (ফর্মুলা) খাওয়ালে। কৌটার দুধ বুকের দুধের চেয়ে বেশি মিষ্টি, তাই বুকের দুধ আর টানবেনা। মিষ্টি পেলে কি আর কেউ তিতা খায়!

৭। মায়ের বড় কোন অসুখ এবং কিছু কিছু ওষুধের কারনে বুকের দুধ কমে যেতে পারে।

৮। মায়ের বুকে দুধ তৈরি হওয়া একটা ‘ডিমান্ড অ্যান্ড সাপ্লাই সিস্টেম’ অনুসরণ করে। অর্থাৎ শিশু যত দুধ টানবে, তত মায়ের মস্তিষ্কের পিটুইটারি গ্রন্থি উদ্দীপ্ত হয়ে বেশি বেশি প্রলেকটিন হরমোন তৈরি করবে। তত বেশি দুধ উৎপাদিত হবে। বুকের দুধ তৈরির একমাত্র উদ্দীপক বা স্টিমুলাস হলো শিশুর দুধ টানা। তাই যে মায়েরা একেবারে শুরু থেকেই বারবার দুধ দেননি, তাঁদের এই উৎপাদনপ্রক্রিয়া ব্যাহত হয়।

৯। বুকের দুধ খাওয়ানোর ভুল পদ্ধতিও দুধ তৈরির প্রক্রিয়াকে বাধা দেয়। বিশেষ করে নতুন মায়েরা এই সমস্যায় ভোগেন। দুধ খাওয়ানোর সময় শিশুর মাথা ও কাঁধ সমান্তরালে থাকবে, বাঁকা হবে না, দুধের বোঁটার চারপাশে এক ইঞ্চি পর্যন্ত পুরোটা শিশুর মুখের ভেতর ঢুকিয়ে দিতে হবে।

১০। অনেক সময় মা ভাবেন যে দুধ কম হচ্ছে, কিন্তু আসলে তা ঠিক নয়। লক্ষ রাখুন, শিশু সপ্রতিভ আছে কি না, ওজন বাড়ছে কি না। নবজাতক শিশু দিনে সাত-আটবার প্রস্রাব করে এবং দুই-তিনবার মলত্যাগ করে। দুধ খাওয়ার সময় খেয়াল করুন দুধ গিলে ফেলার শব্দ হচ্ছে কি না বা ঠোঁটের কোণে মুখের ভেতর দুধ দেখা যাচ্ছে কি না। অনেক সময় শিশু দীর্ঘক্ষণ ঘুমিয়ে থাকে, এই সময়ও তাকে দুধ দিতে হবে। প্রয়োজনে কানের পেছনে বা পায়ের নিচে সুড়সুড়ি দিয়ে জাগাতে হবে। যথেষ্ট দুধ তৈরি করতে হলে দিনে অন্তত আট থেকে ১০ বার (দিনের বেলা দুই ঘণ্টা পরপর ও রাতে ৪ ঘণ্টা পরপর) দুধ দিতে হবে।


[আপনাদের সুখী জীবন আমাদের কাম্য। ধন্যবাদ।]

Thursday, March 3, 2016

গরম পানি পানের অবিশ্বাস্য ১২টি উপকারিতা!

গরম পানি আমাদের স্বাস্থ্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা রাখে। আসুন আমরা জেনে নেই গরম পানি আমাদের কী ধরনের উপকারে আসে।


১. ওজন কমবে গরম পানি শরীরের বিপাক ক্রিয়া খুব ভালভাবে সম্পন্ন করে। যার ফলে বাড়তি মেদ কমবে। তবে আরো বেশি কাজ দিবে যদি সকালে খালি পেটে গরম পানির সাথে লেবু মিশ্রিত করে পান করেন। এটা বডি ফ্যাট ভাঙতে সাহায্য করবে।
২. গলা ও নাসারন্দ্রের মধ্যে সমন্বয় সাধন করবে ঠাণ্ডা লাগা, কফ জমে যাওয়া এবং গলা ব্যাথায় গরম পানি খুব কার্যকর ভূমিকা রাখে। এটা কফ তরল করে বের করে দেয়। গলা ব্যথা কমায়। এছাড়া নাসারন্দ্রের পথ পরিষ্কার রাখে।
৩. মাসিক বাধা দূর করে গরম পানি মেয়েদের মাসিকের সমস্যা দূর করতে ভূমিকা রাখে। এটা পেটের পেশীকে শান্ত ও কোমল করে। যার ফলে মাসিকের সমস্যা দূর হয়।
৪. শরীরের বর্জ্য বের করে দেয় গরম পানি পান করলে শরীরের তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করে। ফলে ঘাম ঝরবে। ঘামের সাথেই শরীরের অনেক ধরনের বর্জ্য বের হয়ে যাবে। এতে শরীর সুস্থ্য থাকবে।
৫. অকালে বয়সের ছাপ দূর করবে শরীরের বর্জ্য বের হতে না পারলে ত্বকের কোষ নষ্ট হয়। ফলে অকালে বয়সের ছাপ পড়ে। গরম পানি এই নষ্ট কোষগুলোকে ঠিক করে ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়। ফলে ত্বক কোমল হয় এবং বয়সের ছাপ দূর হয়।
৬. ব্রণ ও ফুস্কুড়ি দূর করে গরম পানি বর্জ্য পদার্থ শরীর থেকে বের করে দিয়ে ত্বক পরিষ্কার রাখে। এতে ব্রণ ও ফুস্কুড়ি হওয়ার সম্ভাবনা কমে। তাই যারা ব্রণের সমস্যায় কাতর, তাদের উচিত গরম পানি পান করা।
৭. চুলের স্বাস্থ্য এবং জীবনীশক্তি গরম পানি চুলের গোড়ায় থাকা স্নায়ু কার্যকর করে চুল শক্ত করে। ফলে চুল নরম ও উজ্জ্বল থাকে। এটি ফিরে পায় স্বাভাবিক জীবনীশক্তি।
৮. চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করে চুলের গোড়ার স্নায়ু সক্রিয় থাকায় চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত হয়। গরম পানি প্রতিদিনকার কার্যক্রম চালু রেখে চুল লম্বা হতে সাহায্য করে।
৯. খুশকি দূর করে গরম পানি মাথার খুলি জলযোজিত করে মাথায় খুশকি হওয়া রোধ করে। অনেক সময় শ্যাম্পু ব্যবহার করেও ফল হয় না, তবে নিয়মিত গরম পানি পান করলে সুফল পাওয়া যাবে নিশ্চিত।
১০. রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রেখে নার্ভতন্ত্র সক্রিয় রাখে গরম পানি পানের আরেকটি উপকারিতা হল এটা রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে। ফলে পেশী ও স্নায়ু সক্রিয় থাকে। পাশাপাশি বাড়তি চর্বি ভেঙ্গে ফেলায় এগুলো যথেষ্ট উন্নত হয়।
১১. হজম ভাল হয় খাদ্য গ্রহণের পর ঠাণ্ডা পানি পান করলে খাদ্যের সাথে থাকা চর্বিগুলো জমিয়ে ফেলে। এতে পাকস্থলীর গাত্রে চর্বির স্তর জমতে থাকে। যা শেষ পর্যন্ত ক্যান্সারে রূপান্তরিত হয়। কিন্তু গরম পানি তার উল্টোটা করে। এটা চর্বি ভেঙ্গে তা হজম বা নিঃসরণে সহায়তা করে। ফলে হজম প্রক্রিয়া ভাল হয়।
১২. রেচন প্রক্রিয়া ভাল হয় ভাল হজম হলে ভাল রেচনও হবে। গরম পানি নাড়িভুঁড়ির গাত্র সক্রিয় রাখে। ফলে রেচন নিয়মিত ও স্বাভাবিক হয়।



[আপনাদের সুখী জীবন আমাদের কাম্য। ধন্যবাদ।]

Monday, January 25, 2016

সাপে কাটা!

সর্পদংশন বা সাপে কাটা একটি অপ্রত্যাশিত দুর্ঘটনা৷ দংশিত ব্যক্তি এরকম পরিস্থিতির জন্য মোটেই প্রস্তুত থাকেন না৷ বাংলাদেশের গ্রামগুলোয় সর্পদংশন প্রায়ই সাপে কাটার ঘটনা ঘটে থাকে৷ বেশিরভাগ জনসাধারণের সাপ সম্পর্কে অযথা ভীতি রয়েছে৷ দংশনকারী সাপ বিষধর হলে মারাত্মক প্রতিক্রয়া হতে পারে৷ সর্পদংশনে মানুষের মৃতু্য হার অনেক৷


বাংলাদেশের চিকিৎসা ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ সাপসমূহঃ
বাংলাদেশে মাত্র ৬ প্রজাতির বিষধর সাপ আছে-
 কোবরা (গোখরা)
 কেউটে (ক্রেইট)
 চন্দ্রবোড়া (রাসেলস ভাইপার)
 সামুদ্রিক সাপ (সি স্নেক)
 রাজ গোখরা (কিং কোবরা)

লক্ষণঃ
 দংশিত স্থানে ব্যথা নাও থাকতে পারে তবে ক্ষতস্থান ফুলে গেলে কিংবা পঁচে গেলে ব্যথা হতে পারে৷
 রোগীর ঘুমঘুম ভাব হতে পারে ও দুর্বলতা অনুভব করতে পারে৷
 প্যারালাইসিস বা পক্ষাঘাত দেখা দিতে পারে৷ চোখের মাংসপেশী ও অক্ষিগোলকের মাংসপেশীতে প্যারালাইসিস হলে রোগীর চোখের পাতা ভারী হয়ে যায়, চোখ বুঁজে আসে, চোখে ঝাপসা দেখে৷
 জিহ্বা জড়িয়ে আসা, কথা বলতে অসুবিধা হওয়া, চোয়াল ও তালু অবশ হওয়ার কারণে ঢোক গিলতে অসুবিধা, হাঁটতে অসুবিধা হওয়া, হাত-পা অবশ হয়ে যাওয়া এমন কি মাংসপেশীও অবশ হতে পারে৷ শ্বাস-প্রশ্বাসের অসুবিধা হয়ে রোগী নীল বর্ণ হয়ে যেতে পারে৷

প্রাথমিক চিকিৎসাঃ
 রোগীকে আশ্বস্ত করতে হবে ৷ বেশিরভাগ রোগী মনে করেন মৃতু্য অবশ্যম্ভাবী৷ তাই জরুরি ভিত্তিতে রোগীকে সাহস দেয়া ও প্রাথমিক চিকিত্‌সা দিয়ে যথাযথ স্থানে/হাসপাতালে চিকিত্‌সার জন্য প্রেরণ করলে রোগী বিশ্বাস ও সাহস ফিরে পাবে৷
 দংশিত স্থান কিছুতেই কাটা উচিত নয়৷ কেবল ভিজে কাপড় দিয়ে কিংবা জীবাণুনাশক লোশন দিয়ে ক্ষতস্থান মুছে দিতে হবে৷
 দংশনকৃত স্থান থেকে ভিতরের দিকে সাথে সাথে কেবল একটি গিঁট গামছা বা কাপড় দিয়ে (পায়ে দংশন করলে রানে, হাতে দংশন করলে কনুইয়ের উপরে গিঁট) এমনভাবে দিতে হবে যেন খুব আটসঁাট বা ঢিলে কোনটাই না হয় (বলা হয় যেন একটি আঙুল একটু চেষ্টায় ভেতরে যেতে পারে)৷
 সাপে কাটার স্থান বেশি নড়াচড়া করা যাবে না কারণ মাংসপেশী সংকোচন করলে বিষ দ্রুত শরীরে ছড়িয়ে পড়ে৷
 রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে প্রেরণ করতে হবে কোনোক্রমেই রোগীকে হঁাটতে দেওয়া যাবে না৷ রোগীকে কঁাধে, খাটিয়ায় বা দোলনায় করে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে৷ (সম্ভব হলে মৃত সাপ এর প্রজাতি ও বিষধর কিনা তা নিরূপণের জন্য সংগে নিতে হবে৷ সাবধান! সাপ মৃত কিনা ঠিকভাবে দেখে নিন৷ কারণ সাপ মারা যাওয়ার ভান করতে পারে এবং পরে আবার সাপ-দংশন করতে পারে৷)
 জরুরি কোনো উপসর্গ না থাকলে বিষদাতের চিহ্ন পরীক্ষার জন্য দংশিত স্থান পরীক্ষা করতে হবে৷ বিষ দাঁতের দাগ প্রায় আধা ইঞ্চি ফাকে দুটি খোচা দেয়ার চিহ্ন হিসাবে অথবা কেবল আচড়ের দাগ হিসেবে দেখা যেতে পারে৷ দুটো বিষদাঁতের চিহ্ন পরিষ্কারভাবে থাকলে খুব সম্ভবত সাপটি বিষধর, তবু বিষদাঁতের চিহ্ন না থাকলে যে সাপটি বিষধর নয় তা বলা যাবে না৷ 
 কামড়ানোর স্থানে চামড়ার রঙের পরিবর্তন, কালচে হওয়া, ফুলে যাওয়া, ফোসকা পড়া, পচন ধরা ইত্যাদি হতে পারে- আবার কোনো পরিবর্তন নাও থাকতে পারে৷ আবার প্রাথমিক চিকিত্‌সার ফলেও স্থানীয় পরিবর্তন হতে পারে৷

কুসংস্কারঃ
আমাদের দেশে অনেক ক্ষতিকর প্রাথমিক চিকিত্‌সা প্রচলিত যা ওঝা ও সর্প-চিকিৎসকরা প্রদান করে থাকেন৷ যা থেকে অনেক সময় রক্তপাত, ধনুষ্টংকার ও পঁচনসহ অন্যান্য অসুবিধা হয়৷
 দংশিত অঙ্গ ধারালো ছুরি দিয়ে কেটে রক্তক্ষরণ করানো৷
 একাধিক স্থানে খুব শক্ত করে গিঁট দেয়া৷
 কার্বলিক এসিড জাতীয় রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে দংশিত জায়গা পোড়ানো
 গাছ-গাছড়ার রস দিয়ে প্রলেপ দেয়া৷
 বমি করানোর জন্য বিভিন্ন পদ্ধতির ব্যবহার৷
 কানের ভেতর বা চোখের ভেতর কিছু ঢেলে দেয়৷
এসব কখনও করা উচিত নয় বরং হাসপাতালে বা ডাক্তারের সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে৷

সর্পদংশন প্রতিরোধঃ
 বেশিরভাগ সর্পদংশন পায়ে হয়ে থাকে৷ কাজেই সাপ থাকতে পারে এমন জায়গায় হাটার সময় বিশেষ সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে জুতা, লাইট ইত্যাদি সঙ্গে রাখতে হবে৷
 সাপ সামনে পড়ে গেলে ধীর-স্থির হয়ে দাড়িয়ে থাকা উচিত্‌, সাপ প্ররোচনা ছাড়া দংশন করে না৷ (শুধু সাপ নয় পৃথিবীতে কোনো প্রাণীই অনর্থক ক্ষতি করে না)
 দুর্ভাগ্যবশত যদি সাপ দংশন করে থাকে, শান্ত থেকে কারো সাহায্য নিতে হবে৷ সর্পদংশনের পর কখনো দৌড়ানো উচিত্‌ নয়, এতে বিষ দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে৷

[আপনাদের সুখী জীবন আমাদের কাম্য। ধন্যবাদ।]